বুধবার, ২৯ Jun ২০২২, ০৫:৪৭ পূর্বাহ্ন

খবরের শিরোনাম :
কুড়িগ্রাম উলিপুরের হাতিয়া ইউনিয়নে রক্ত যোদ্ধা ক্লাবের ত্রাণ বিতরণ পদ্মা সেতু উদ্বোধনে উচ্ছ্বসিত রংপুরের মানুষ পদ্মা সেতু উদ্বোধন উপলক্ষে রংপুর মেট্রোপলিটন পুলিশের বনার্ঢ্য র‍্যালি হিন্দু ধর্মাবলম্বীদের পূজা পার্বণের প্রতিমা_বিসর্জন পুকুর খনন ও কবরস্থানের কাজ শুরু ফেন্সিডিল সহ রংপুর মহানগর স্বেচ্ছাসেবক লীগের দপ্তর সম্পাদক গ্রেফতার পরিবারের অভাব ঘোচাতে শিশু রুবেল ঢাকায়, ৭ দিন পর ফিরল লাশ হয়ে পদ্মা সেতু’র শুভ উদ্বোধন উপলক্ষে নগরীতে রংপুর সিটি কর্পোরেশনের বণার্ঢ্য র‌্যালী রংপুর সিটি কর্পোরেশনে নগর পুষ্টি কর্ম পরিকল্পনা পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত রংপুরে প্রাইভেটকারে ৫ ছাগল চুরির চেষ্টা, জনতার ধাওয়ায় সব রেখে পালালো চোর রংপুরে মেয়েকে কুপিয়ে হত্যার পর বাবার আত্মহত্যার চেষ্টা;স্ত্রী ও আরেক মেয়ে আহত
অর্থের অভাবে রোবটটির পুরোপুরি কাজ শেষ করতে পারেনি লালমনিরহাটের হাবিব

অর্থের অভাবে রোবটটির পুরোপুরি কাজ শেষ করতে পারেনি লালমনিরহাটের হাবিব

নিউজ ডেক্সঃ

রেস্টুরেন্টের সকল কাজ করতে সক্ষম এমন রোবট আবিষ্কার করে এলাকায় হৈ চৈ ফেলেছেন লালমনিরহাটের প্রত্যন্ত অঞ্চলের কলেজছাত্র আহসান হাবিব।

লালমনিরহাট জেলার কালীগঞ্জ উপজেলা তুষভান্ডার ইউনিয়নের মানিক বাজার এলাকার মৃত মজু মিয়ার ছেলে। তিনি কালীগঞ্জ করিম উদ্দিন পাবলিক কলেজের দ্বাদশ শ্রেণির মানবিক শাখার ছাত্র। দীর্ঘ ২ বছরের গবেষণায় আবিষ্কার এই রোবটটি রেস্টুরেন্টের সব কাজ করতে পারে। শুধু তাই নয়, রোবটি প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশের অনেক মন্ত্রী-এমপির নামও বলতে পারে। এ ছাড়া বাংলা ও ইংরেজিতে প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে। রোবটটি হাত দিয়ে ভারী জিনিসপত্র বহন করতে এবং হ্যান্ডশেক করতে পারে। জানা গেছে, হাবিব ছোটবেলা থেকেই তথ্য প্রযুক্তির ওপর আসক্ত ছিলেন। নতুন কিছু আবিষ্কারের নেশায় তথ্য প্রযুক্তিতে বেশ মনোযোগী ছিল তার । ২০১৭ সালে তুষভাণ্ডার আর এম এম পি সরকারি বালক উচ্চ বিদ্যালয়ের খরচে কাঠ দিয়ে একটি রোবট তৈরি করেন হাবিব । যা ওই সময় লালমনিরহাট জেলা বিজ্ঞান ও তথ্য প্রযুক্তি মেলায় প্রথম স্থান অর্জন করে। এতে তার আবিষ্কারের নেশা আরও বেড়ে যায়। ২০১৮ সালে হাবিবের বাবার মৃত্যুতে পরিবারে দারিদ্রতা আরও বেড়ে যায়। তবুও হাল ছাড়েনি হাবিব। লক্ষ্য পূরণে টিউশনি শুরু করেন। সেখান থেকে যা আয় হতো তার একটা অংশ গবেষণা কাজে ব্যয় করতেন। ইউটিউব দেখে রেস্টুরেন্টে কাজ করতে সক্ষম এমন একটি রোবট আবিষ্কারে প্রচেষ্টা শুরু করেন তিনি। এভাবে দিনরাত পরিশ্রম করে গত সাপ্তাহে রোবটটি আংশিক তৈরী করেন। আর্থিক সংকটের কারণে এখনো রোবটির পুরোপুরি কাজ শেষ করতে পারেননি। রোবটটি সামনের দিকে এবং পিছনের দিকে আশা যাওয়া করতে পারে। এছাড়াও সব প্রশ্নের উত্তর দিতে পারে। হাবিবের টাকা সংগ্রহ হলে আগামী তিন মাসের মধ্যে বাংলা দেশের মানুষের কাছে উন্মুক্ত করবে রোবটটি। হাবিবের প্রতিবেশীরা জানান, হাবিব যখন এসব তৈরি করতেন তখন ভেবেছিলাম বাবা-মায়ের কষ্টের টাকা নষ্ট করছে। কিন্তু এখন তাদের ভুল ভেঙেছে। হাবিবের শিক্ষক ইমান আলী বলেন, হাবিবের কাজ দেখে প্রতিবেশীরা তাকে পাগল বলতেন। কিন্তু আজ তারাই হাবিব কে নিয়ে গর্ব করছেন। হাবিব ছোট থেকেই অনেক মেধাবী ছিল। অভাবের কারণে বাইরে পড়াশুনা করতে পারেনি। তার আবিষ্কারে উৎসাহ দিতে বিত্তবান ও সরকারের প্রতি এগিয়ে আসার আহ্বান জানান তিনি। হাবিব বলেন, সারাবিশ্বের কাছে বাংলাদেশ কে পরিচিত করে দিতেই আমার এই প্রচেষ্টা। আমার এই কাজে সাহস যুগিয়েছে আমার মা ও বড় ভাই। আমার এই রোবটটি রেস্টুরেন্টে কাজ করবে, মানুষের সঙ্গে কথা বলবে, ভারী খাবার পরিবহন ও পরিবেশন করবে। এ ছাড়াও যে কোন প্রশ্নের উত্তর চাইলে বলে দিবে। অর্থের কারনে রোবটটির কাজ পুরোপুরি কাজ শেষ করতে পারিনি। আশা করছি দ্রুত মানুষের কাছে রোবটি উন্মুক্ত করতে পারব। তাই হাবিব প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনাসহ দেশবাসীর নিকট সহযোগীতা চেয়েছেন।

আপনার সোস্যাল মিডিয়ায় শেয়ার করুন

© ২০২২ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত | এনপিনিউজ৭১.কম
Developed BY Rafi It Solution